বৃহস্পতিবার, ১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং। ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। দুপুর ২:৩৮








প্রচ্ছদ » সারাদেশ

বিয়ের ১৮ বছর পরে ‘যৌতুকের’ টাকা ফিরিয়ে দিয়ে অভিশাপমুক্ত হলেন বাদশা

যৌতুক প্রথা অবশ্যই সামাজিক ব্যাধি৷ আমাদের সমাজে মেয়েদের যেভাবে দেখা হয়, সেই দৃষ্টিভঙ্গি তো বদলায়নি৷ বিয়েতে যৌতুক দেয়া এবং নেয়া আমাদের সমাজে এখনো প্রচলিত আছে৷ বাংলাদেশে কিন্তু যৌতুকবিরোধী আইন আছে৷

অথচ যারা যৌতুক দিচ্ছে এবং নিচ্ছে তারা কিন্তু এই আইনের তোয়াক্কা করছে না৷ তবে আইনের ফাঁক-ফোকর রয়েছে৷ এই যৌতুকটা একটা মেয়ের জন্য অত্যন্ত অসম্মানজনক৷

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন...

এর কারণেই মেয়েরা বাল্যবিয়ের শিকার হচ্ছে৷ মেয়ের বয়স যত বেশি হবে, তার জন্য নাকি তত বেশি যৌতুক দিতে হবে৷ উচ্চবিত্ত পরিবারেও নানা কৌশলে যৌতুক দেয়া এবং নেয়া হচ্ছে৷

এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সফলতা আসছে না৷ সামাজিক এই ব্যাধি ছড়িয়ে পড়েছে রন্ধ্রে রন্ধ্রে৷ গ্রাম থেকে শহরে, উচ্চবিত্ত থেকে নিম্নবিত্ত – সর্বোত্রই এই ব্যাধির প্রকোপ৷ তবে, টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার হাদিরা ইউনিয়নের হাবিবপুর গ্রামে ঘটেছে এক অন্যরকম ঘটনা।

গত,  ১৮ বছর আগে ৪০ হাজার টাকা  যৌতুক নিয়ে বিয়ে করেছিলেন বর্তমানে চার সন্তানের জনক আব্দুর রহিম বাদশা। তিনি আজ যৌতুকের  ৪০ হাজার টাকা  ফিরিয়ে দিয়ে অভিশাপমুক্ত হলেন। তিনি স্থানীয় মো. নজরুল ইসলামের ছেলে।

জানা গেছে, ২০০০ সালে একই উপজেলার আলমনগর ইউনিয়নের দক্ষিণ নবগ্রামের মো. আব্দুল হালিমের মেয়ে লতা বেগমকে বিয়ে করেন তিনি। দাম্পত্য জীবনের বেশ কিছুদিন পর জানতে পারেন বিয়ের সময় তার বাবা স্ত্রীর পরিবার থেকে ৪০ হাজার টাকা যৌতুক নিয়েছেন। এরপর তিনি লজ্জায় পড়ে যান।

সেই থেকে অন্তরে ঘৃণিত ওই যৌতুকের দায় পরিশোধের মনোভাব লালন করেন তিনি। তাদের ১৮তম বিবাহবার্ষিকীতে আব্দুর রহিম বাদশা পূর্বের ভুল সংশোধনে নিজ উদ্যোগেই যৌতুক বাবদ নেয়া টাকা ফিরিয়ে দিলেন শ্বশুর আব্দুল হালিমকে। শুধু যৌতুকের টাকা পরিশোধ করেননি তিনি, স্ত্রীর পরিবার গৃহপালিত পশুও উপহার দেন তিনি।

১৮ বছর পর যৌতুকের টাকা ফেরৎ দেয়ার বিষয়টি সচেতনার অসাধারণ দৃষ্টান্ত রূপে তুলে ধরার গৌরব অর্জন করেছেন আব্দুর রহিম বাদশা। এ প্রসঙ্গে যৌতুক বিরোধী ব্যক্তিত্ব আব্দুর রহিম বাদশা জানান, যৌতুক একটি সামাজিক ব্যাধি। আমি যৌতুকের টাকা ফিরিয়ে দিলাম। আর আমি কখনও চিন্তা করিনি যৌতুক নিয়ে বিয়ে করবো।

আরও পড়ুন>>> বিখ্যাত মনীষীদের ১০০ বাণী